এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০

শিরোনাম

  •              

প্রণব মুখার্জির সান্নিধ্যে গিয়েছিলেন ব্যারিস্টার ইমন

বিভাগ : ফিচার প্রকাশের সময় :২ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ৩:৫৫ : অপরাহ্ণ

এমএ রহিম/নিউটি সরকার, সিলেট: সদ্য না ফেরার দেশে চলে যাওয়া ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জি দিল্লীর সরকারি বাসভবনেই থাকতেন। ২০১৮ সালে ওই বাসভবনে তাঁর সাথে সর্বশেষ সাক্ষাত করি। ওই সাক্ষাতে সুনামগঞ্জে আমন্ত্রণ জানিয়েছিলাম। সম্মতিও দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি তার আগেই চিরবিদায় নিয়েছেন আমাদের মাঝ থেকে। ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখার্জিকে নিয়ে দৈনিক বায়ান্নের কাছে স্মৃতিচারণ করেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এম এনামুল কবির ইমন। তিনি জানাচ্ছিলেন, এতো গুনে গুণান্বিত ব্যাক্তির সাথে বেশ কয়েকবার সরাসরি আলাপ চারিতা হয়। ধারণার থেকেও বেশি মার্জিত ব্যবহারে মুগ্ধ হই। দিল্লীতে সুনামগঞ্জের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের একটি পেইন্টিং উপহার দিয়ে নান্দনিক ফাউন্ডেশনের পক্ষ থেকে নান্দনিক সুনামগঞ্জে নিমন্ত্রণ করেছিলাম । তাতে তিনি সম্মতি জ্ঞাপনও করেছিলেন। কিন্তু তা আর হয়ে উঠেনি। স্বাধীনতা উত্তর সময় থেকে বর্তমান সময় পর্যন্ত সুনামগঞ্জের রাজনৈতিক পটভূমি উনার ছিল নখদর্পে। যা আমাকে আশ্চর্য করে। উনার মৃত্যুতে বাংলাদেশ হারালো তার এক অকৃত্রিম বন্ধুকে। ভাল থাকবেন ওপারে প্রিয় দাদা। ব্যারিস্টার ইমন বলেন, শেষবারের সাক্ষাতের সময় অনেক কথা বলেছিলেন সুনামগঞ্জ সম্পর্কে। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সুনামগঞ্জের কোন্ নেতা কী ধরণের ভূমিকা রেখেছিলেন তা বলেছেন নাম উল্লেখ করে। সুনামগঞ্জের নেতাদের নাম উল্লেখ করে এই উপমহাদেশের প্রজ্ঞাবান রাজনীতিক প্রণব মুখার্জি অনেক অনেক স্মৃতিচারণ করেছিলেন সাক্ষাতের সময়। বাংলাদেশের আনাচে কানাচের কথা বলেছেন। প্রণব মুখার্জির রাজনৈতিক প্রজ্ঞা আমাকে অভিভূত করেছিল। ব্যারিস্টার ইমন জানান, শৈশব থেকেই ভারতের রাজনীতিতে সংযুক্ত হয়েছিলেন প্রণব মুখার্জি। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনে তিনি ভারতের ৫৪ টি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেছেন। সর্বশেষ তিনি ভারতের রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন। দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় এই উপমহাদেশের রাজনীতিতে বিশাল অবদান রেখে গেছেন। ব্যারিস্টার ইমন বলেন, ২০১২ থেকে ২০১৭ সাল পর্যন্ত সেদেশের রাষ্ট্রপতি ছিলেন প্রণব মুখার্জি। ৫০ বছরেরও বেশি সময় সক্রিয় রাজনীতিতে থাকা প্রণব মুখার্জিকে ২০১৯ সালে ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মান ভারত রত্নে ভূষিত করা হয়। ১৯৯৭ সালে তিনি সেরা সাংসদ পুরস্কার পেয়েছিলেন। ২০০৮ সালে পদ্মবিভূষণ সম্মান পান তিনি। গত ১৩ আগস্ট থেকে তিনি গভীর কোমায় চলে যান। ১০ আগস্ট হাসপাতালে ভর্তির পর ধরা পড়ে, তিনি কোভিড-১৯ আক্রান্ত হয়েছেন। সেই অবস্থাতেই ওই দিন রাতে দীর্ঘ অস্ত্রোপচার হয়। তার পর থেকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল প্রণব বাবুকে। অস্ত্রোপচারের আগে, নিজের করোনা সংক্রমিত হওয়ার খবর টুইট করে জানিয়েছিলেন তিনিই। সেটাই ছিল প্রণব মুখার্জির শেষ টুইট।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা