এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯

শিরোনাম

  •          

সিরাজগঞ্জে শীতের বার্তায় লেপ-তোশক তৈরীর ধুম

বিভাগ : এক্সক্লুসিভ প্রকাশের সময় :22 November, 2019 6:50 : PM

এম এ মালেক, সিরাজগঞ্জ:

শীতের আগমনি বার্তায় সিরাজগঞ্জে শুরু হয়েছে লেপ-তোশক তৈরির ধুম। শহর ও গ্রামগঞ্জের বাজারে লোপ তোষক তৈরির কারখানা গুলোতে কাজে যেন দম ফেলার ফুরসত নেই।

কারিগররা তুলার স্তুপ করে তার উপর ধনুট দিয়ে আঘাত করে চলছেন। পুরোপুরি প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ হলে সেই তুলে ঢোকানো হয়ে থাকে রঙ বেরঙের কাপড়ের তৈরির লেপ তোষকের কভারে। এরপর শুরু হয় সুই সুতার কাজ। কভার ও ভিতরের ঢোকানো তুলা ভেদ করে খসখস শব্দ তুলে চলতে থাকে সুই। সুই সুতার গাঁথুনিতে বাঁধা পড়ে যায় সেই কভার তুলা।

এতেই তৈরির হয়ে যায় এক একটি লেপ তোষক। সিরাজগঞ্জের বিভিন্ন বাজার গুলোতে সারিবদ্ধ ভাবে বেশ কয়েকটি লেপ তোষকের দোকান গড়ে ওঠেছে। এছাড়া জেলার কাজিপুর,তাড়াশ শাহজাদপুর,উল্লাপাড়া,রায়গঞ্জ ও চলনবিল এলাকাসহ বিভিন্ন বাজারে বেশ কিছু দোকানের মালিক ও কারিগররা অর্ডার অনুযায়ী লেপ তোষক তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

পাশাপাশি লেপ তোষক মেরামতের কাজে হাত দিচ্ছেন। সারা বছরের ব্যবসা শীতের কয়েক মাসে পুষিয়ে নিতে যেন মরিয়া হয়ে ওঠেছেন তারা। দোকানীরা জানান, প্রত্যেক বছর শীতের শুরু থেকে ক্রেতা সাধারণ লেপ তোষকের দোকানগুলোই আসতে থাকেন। শীতের মাত্রা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্রেতাদের ভিড়ও বাড়তে থাকে।

এবারেও তার ব্যতিক্রম ঘটছে না। তারা আরও জানান, সারা বছর তেমন একটা ব্যবসা হয় না। পুরো বছরের ব্যবসা শীতের এই তিন চার মাসে করতে হয়। শীতের সময় ছাড়া বিয়ে সাদিতে লেপ তোষক বিক্রয় হয়, তবে এজন্য তাদের ব্যাপক শ্রম দিতে হয়। কাজ করতে অনেক দিন রাত পেরিয়ে যায়, খাবার সময় থাকে না।

তবে সবকিছুর দাম বেড়ে যাওয়ায় ব্যবসায় লাভ কমে এসেছে বলে জানিয়েছেন দোকানীরা।আগের তুলনায় ব্যবসায় প্রতিযোগিতা অনেক বেড়ে গেছে। তাই সামান্য লাভেই ক্রেতা সাধারণের কাজ করে দিতে হয়।

তাড়াশ উপজেলার কারখানা মালিক আলী আকবর ও শাহিন বাবু জানান, লেপ তোষক তৈরির গার্মেন্টেসের ঝুটের তুলা ও কার্পাস তুলা ব্যবহার করতে হয়। একটি সিঙ্গেল লেপ তৈরি করতে ৫৫০-৭০০ টাকা, সেমিভবল লেপ তৈরিতে ৬৬০-৮০০ টাকা এবং ভবল লেপ তৈরিতে ১০০০-১৫০০ টাকা খরচ হয়। এর মধ্যে রয়েছে সুতা, কাপড় ও মজুরী ব্যয় তবে তোষক তৈরি ক্ষেত্রে দাম একটু বেশি পড়ে। এছাড়া তুলার মান পরিমান, নারিকেলের ছোবরা ও কাপড়ের উপর নির্ভর করে একেকটি তোষকের ব্যয় ধরা হয় বলে জানান।



ফেইসবুকে আমরা