এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০

ফরিদপুরে বিদ্রোহীদের নিয়ন্ত্রনই আওয়ামীলীগ-বিএনপির বড় চ্যালেঞ্জ

বিভাগ : রাজনীতি প্রকাশের সময় :১৭ নভেম্বর, ২০২০ ১২:৫৭ : অপরাহ্ণ

মীর আনিস/ফরিদপুর সংবাদদাতা :

ফরিদপুর ও মধুখালী পৌরসভায় আওয়ামীলীগ-বিএনপির প্রার্থীরা এখন ব্যস্ত নিজ নিজ দলের অভিমান করা নেতা-কর্মীদের মান ভাঙ্গনোর চেষ্টায়। দুই দলেই আছে নিজেদের মধ্যে কোন্দল। কোন্দল নিরসন করে একক প্রার্থী দেওয়া বা দলীয় প্রার্থীর পক্ষে দলের অভিমান করা নেতা-কর্মীদের সক্রিয় করার চেষ্টা চালাচ্ছেন নেতারা।
ফরিদপুর ও মধুখালী পৌরসভায় আওয়ামীলীগের রয়েছে একাধীক প্রার্থী। ফরিদপুরে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী হলেন জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক অমিতাভ বোস, সেখানে দলীয় মনোনয়ন চেয়ে বি ত হয়েছেন বর্তমান মেয়র মোতাহার হোসেন মেথু। মেথু মনোনয়নপত্র জমা দিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন। মেথুকে ফরিদপুর আওয়ামীলীগ তাদের সমর্থক হিসাবেও মনে করে না। ফরিদপুর আওয়ামীলীগ নেতাদের মুল্যায়ন মেথু দলছুট নেতা।

অপরদিকে মধুখালী পৌরসভায় আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী খন্দকার মোরশেদ রহমান লিমন। আওয়ামীলীগ সমর্থনকারী মির্জা পরিবারের সন্তান মধুখালী বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারন সম্পাদক মির্জা মাঝহারুল ইসলাম মিলন স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন।

ফরিদপুরে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মহিলা দলের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সম্পাদক চৌধুরী নায়াব ইউসুফ। সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইউসুফের মেয়ে নায়াব ইউসুফ। দলীয় মনোনয়ন না পেয়ে আরও তিনজন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, তারা হলেন ফরিদপুর মহানগর যুবদলের সভাপতি বেনজির আহমেদ তাবরীজ, জেলা বিএনপির সাবেক সহ-সভাপতি এএফএম কাইয়ুম জঙ্গি, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক একে কিবরিয়া স্বপন। বিএনপি এখন বিদ্রোহীদের কিভাবে নিয়ত্রন করে একক প্রার্থী দেয় সেটাই দেখার বিষয়।
দলে ভেদাভেদ থাকলেও বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকায় সবচেয়ে সুবিধা জনক অবস্থায় আছে মধুখালী পৌরসভায় বিএনপি মনোনীত প্রার্থী শাহাবুদ্দিন আহমেদ সতেজ।
আজ প্রার্থীদের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই। ২৩ নভেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার। ১০ ডিসেম্বর ভোট গ্রহন।

Print Friendly and PDF

ফেইসবুকে আমরা