এই মাত্র পাওয়া :

ঢাকা, শুক্রবার, ৬ ডিসেম্বর ২০১৯

শিরোনাম

  •          

চুনারুঘাটে জব্দকৃত বিএমডব্লিউ গাড়িটি সিলেটে নেয়া হয়েছে

বিভাগ : জাতীয় প্রকাশের সময় :1 December, 2019 7:32 : PM

চুনারুঘাট (হবিগঞ্জ) প্রতিনিধি ॥

হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার নরপতি গ্রামের ভিতরে জব্দকৃত  বিলাশবহুল বিএমডব্লিউ কার নিয়ে সিলেটে রওয়ানা হয়েছে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ। শনিবার বিকেল ৪টায় গাড়ীটি নিয়ে রওয়ানা হয় তারা। গাড়ীর মালিক গাজীউর রহমান ঢাকা থেকে চাবি প্রেরণ করলেও কোন কাগজ প্রেরণ করতে পারেননি। ফলে শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ গাড়ীটি নিয়ে যায়।

চাবি দিয়ে গাড়ী চালানো না গেলে শনিবার বিকেলে পিকআপ দিয়ে টেনে নিয়ে যাওয়া হয় গাড়ী। এ সময় শত শত উৎসুক জনতা সেখানে ভীড় জমায়।  শুক্রবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত অভিযান পরিচালনা করে সিলেট শুল্ক গোয়েন্দা তদন্ত অধিদপ্তরের একটি টিম গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান পরিচালনা করে এই কার জব্দ করেছিল।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, লন্ডন প্রবাসী গাজীউর রহমান কার্নেট সুবিধায় কারটি দেশে এনে দীর্ঘদিন ব্যবহার করেন। তিনি হবিগঞ্জ শহরে গাড়ীটি ব্যবহার করতেন।  নিদিষ্ট মেয়াদ শেষে গাড়ীটি আর রাস্তায় না রেখে তিনি তার গ্রামের বাড়ীতে রেখে দেন।

গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শুক্রবার অভিযান পরিচালনা করলে সেখানে গাজীউর রহমানকে পাওয়া যায়নি । বাড়ীর লোকজন জানান কোন কাগজ এবং চাবি তাদের কাছে নেই। সেখানকার রাস্তা সরু হওয়ায় রেকার যেতে পারে না বলে গোয়েন্দা টিম সেটি স্থানীয় মেম্বার আব্দুল আলীর জিম্মায় রাখা হয়। সারারাত গাড়ীটি পাহারা দেয় চুনারুঘাট থানার দুই পুলিশ শনিবার সকালে গাড়ীটি শুল্ক বিভাগের হেফাজতে আনার জন্য গেলে জিম্মাদার চাবি দিলেও এতে কোন কাজ হয়নি। পরে পিকআপ এনে এটি উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকৃত গাড়ীটির মডেল থ্রি জিরো ডি বিএমডব্লিউ এক্স ৫। ইন্টারনেটে দেখা যায় বৃটেনে এই গাড়ীর দাম ৫৭ হাজার থেকে ৭১ হাজার পাউন্ড। গাড়ীটি কার্নেট সুবিধায় বৃটেন থেকেই বাংলাদেশে আনা হয়েছিল।

সিলেট কাস্টম গোয়েন্দা তদন্ত অধিদপ্তরের রাজস্ব কর্মকর্তা আব্দুল মোতালেব জানান, আমরা গাড়ীটি জব্দ করে স্থানীয় ইউপি মেম্বারের জিম্মায় রেখেছিলাম। মালিক ঢাকা থেকে জিম্মাদারের কাছে  চাবি প্রেরণ করলেও কোন কাগজ বা ফটোকপি প্রদান করতে পারেননি। তাই গাড়ীটি আমাদের জিম্মায় নিয়ে এসেছি। এর মালিক আমাদের সিলেট অফিসে গিয়ে যদি বৈধ কাগজ দেখাতে পারেন তাহলে সেই অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। অন্যথায় কাস্টমের বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তিনি আরও জানান, আমাদের ধারনা গাজীউর রহমান এই গাড়ীর অন্ততপক্ষে দেড় কোটি টাকা কর ফাঁকি দিয়েছেন। চাবি দিতে পারলে কাগজ দেয়ার কোন সমস্যা ছিল না।

এদিতে গাজীউর রহমানের বাড়ীতে গাড়ী জব্দ করা হলেও সে বাড়ীতে না এসে চাবি প্রেরণ করে। আর বিষয়টিকে আড়াল করতে ঢাকায় তার আইনজীবী ও চুনারুঘাট পৌর বিএনপির সাধারন সম্পাদক আব্দুল হাইকে নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন। শনিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় গাজীউর রহমানের মোবাইলে ফোন দিলে তার নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়। তার সাথে থাকা আইনজীবী এডভোকেট আব্দুল হাইকে এ সময় দুইবার ফোন দিলে তিনি কেটে দেন। পরে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করলেও তিনি কোন উত্তর দেন নি।



ফেইসবুকে আমরা